Category: খাদ্য ও পুষ্টি বিজ্ঞান

Show Posts in

আয়োডিনের কাজ, উৎস এবং অভাবজনিত রোগ

থাইরয়েড গ্ল্যান্ডের কাজ সঠিকভাবে সম্পন্ন হওয়ার জন্য যে খনিজ উপাদানটি অত্যাবশ্যকীয় তা হচ্ছে আয়োডিন। শরীরের বৃদ্ধিও বিপাক নিয়ন্ত্রণ করে থাইরয়েড গ্ল্যান্ড।  আয়োডিনের ঘাটতির ফলে ক্লান্তি, ঝিমুনি আসা, উচ্চ কোলেস্টেরল, বিষণ্ণতা, থাইরয়েড গ্ল্যান্ড ফুলে যাওয়া ইত্যাদি লক্ষণগুলো দেখা যায়। এছাড়াও আয়োডিনের ঘাটতির ফলে প্রেগনেন্সির সময়ে এবং শিশুর জন্মের সময়ও …

আয়রনের কাজ, উৎস এবং অভাবজনিত রোগ

আয়রন বা লৌহ খাদ্য তালিকায় আমাদের একটি অত্যাবশ্যকীয় খাদ্য উপাদান। একটি খনিজ পদার্থ। আমাদের প্রতিদিনকার খাদ্য তালিকার মূল খাদ্য উপাদান হলো ছয়টি—শর্করা, আমিষ, চর্বি, ভিটামিন, খনিজ ও পানি। আর খনিজ নামক মূল উপাদানটির অন্যতম হলো আয়রন। শরীরের কাজকর্ম সঠিকভাবে হওয়ার জন্য আয়রন জরুরি। আয়রনের অভাবে রক্তস্বল্পতা হয়। ক্লান্তি …

ক্যালসিয়ামের কাজ, উৎস এবং অভাবজনিত রোগ

ক্যালসিয়াম আমাদের দেহের জন্য অতি প্রয়োজনীয় একটি খনিজ উপাদান । এটি দেহের হাড় ও দাঁতের প্রধান উপাদান। প্রতিদিন একজন প্রাপ্তবয়স্ক ব্যক্তির সাতশ মিলিগ্রাম ক্যালসিয়াম খাওয়ার প্রয়োজন হয়। তবে গর্ভাবস্থায় এবং বুকের দুধ খাওয়ানোর সময় মায়েদের সাতশ মিলিগ্রাম ক্যালসিয়ামের সাথে আরও কিছু বাড়তি ক্যালসিয়াম দেহে প্রয়োজন হয়। ক্যালসিয়ামের অভাবে …

ভিটামিন কে এর কাজ, উৎস এবং অভাবজনিত রোগ

ভিটামিন-কে এসেনশিয়াল ফ্যাট সলিউবল ভিটামিন। এটি হাড় ও হৃৎপিণ্ডের স্বাস্থ্যকে ভালো রাখে। দেহে ভিটামিন ‘কে’ প্রথ্রোম্বিন নামক প্রোটিন তৈরি করে। প্রথ্রোম্বিন রক্ত জমাট বাঁধতে সাহায্য করে। এ ছাড়া এর আরো অনেক প্রয়োজনীয়তা রয়েছে আমাদের শরীরে। যে সমস্ত খাদ্যে ভিটামিন কে পাওয়া যায় পনির, দই, কলিজা (মাছের কলিজা), ডিমের …

ভিটামিন ই এর কাজ, উৎস এবং অভাবজনিত রোগ

শরীরের জন্য খুব প্রয়োজনীয় একটি ভিটামিন হলো ‘ই’। অনেক খাদ্যে ভিটামিন-ই পর্যাপ্ত পরিমাণে থাকে বলে শরীরে তার অভাব পরিলক্ষিত হয় না। ভিটামিন-ই রাসায়নিক ক্রিয়া বা অক্সিডেশনকে প্রতিহত করে, এ অক্সিডেশন শরীরে ক্ষতিকর প্রভাব ফেলে। শরীরের স্নায়ু ও মাংসপেশির কাজ সঠিক করার জন্যও ভিটামিন-ই গুরুত্বপূর্ণ। এর অভাবে চুল পড়ে …

ভিটামিন ডি এর কাজ, উৎস এবং অভাবজনিত রোগ

আমাদের শরীরের অত্যন্ত প্রয়োজনীয় পুষ্টিকর উপাদানের মধ্যে একটি হলো ভিটামিন ডি। ভিটামিন ডি একটি ফ্যাট সলিউবল সিকুস্টারয়েড। যার কাজ হচ্ছে ইনটিসটাইন থেকে ক্যালসিয়ামকে শোষণ করা। পাশাপাশি এটি আয়রন, ম্যাগনেসিয়াম এবং ফসফরাসকেও দ্রবীভূত করে। ভিটামিন ডি-এর অভাব হলে শিশুদের রিক্যাডস হয় অর্থাৎ দেহের হাড়গুলো ঠিক মতো বৃদ্ধি পায় না, …

ভিটামিন সি এর কাজ, উৎস এবং অভাবজনিত রোগ

দেহের জন্য ভিটামিন সি অতি প্রয়োজনীয় উপাদান। এই ভিটামিন পানিতে দ্রবীভূত হয় এবং সামান্য তাপেই নষ্ট হয়ে যায়। ভিটামিন ‘সি’ দেহে জমা থাকে না তাই প্রতিদিন খাওয়া দরকার। ভিটামিন ‘সি’ পেশি, দাঁত মজবুত করে, ক্ষত নিরাময় ও চর্মরোগ রোধে সহায়তা করে, কণ্ঠনালি ও নাকের সংক্রমণ প্রতিরোধ করে। উৎস …

ভিটামিন বি কমপ্লেক্স এর কাজ, উৎস এবং অভাবজনিত রোগ

‘বি’ কমপ্লেক্স বলতে বোঝানো হয় ভিটামিন ‘বি’ গোত্রের ৮ টি দ্রবণীয় বি ভিটামিনের যৌগ যা একসাথে শক্তির উদ্দীপক হিসেবে কাজ করে। তারা খাদ্যকে এনার্জিতে রূপান্তরিত হতে সাহায্য করে। দেহের অত্যাবশ্যকীয় উপাদানগুলোর মধ্যে অন্যতম হলো ভিটামিন বি। মানবদেহের অত্যন্ত জরুরী কিছু ফাংশন নিয়ন্ত্রণে এটি সাহায্য করে। শরীরকে চাঙ্গা রাখতে ভিটামিন …

ভিটামিন এ এর কাজ, উৎস এবং অভাবজনিত রোগ

ভিটামিন এ আমাদের শরীরের জন্য একটি গুরুত্বপূর্ণ ভিটামিন। দেহে ভিটামিন -এ এর কাজ হলো দৃষ্টিশক্তি স্বাভাবিক রাখা, ত্বক ও শরীর কে সুস্থ রাখা এবং দেহকে বিভিন্ন সংক্রামক রোগের হাত থেকে রক্ষা করা। তাছাড়া খাদ্যদ্রব্য পরিপাক, রক্তে স্বাভাবিক অবস্থা বজায় রাখা ও দেহের পুষ্টি ও বৃদ্ধিতেও ভিটামিন এ সহায়তা করে। …

পুষ্টি কাকে বলে? পুষ্টির প্রাকৃতিক উৎস এবং প্রয়োজনীয়তা

পুষ্টি এমন একটি প্রক্রিয়া যার মাধ্যমে গ্রহণ করা খাদ্য পরিপাক ও শোষিত হয়ে শরীরে তাপ ও শক্তি যোগায়, শরীরের বৃদ্ধিসাধন করে রোগ থেকে মুক্ত রাখে, ক্ষয়পূরণ করে এবং সুস্বাস্থ্য বজায় রাখতে সহায়তা করে। যে শারীরবৃত্তীয় প্রক্রিয়ায় জীব খাদ্যবস্তু গ্রহণ, পরিপাক, পরিশোধন ও আত্তীকরণের মাধ্যমে দেহের ক্ষয়পূরণ, বৃদ্ধি সাধন …

সুষম খাদ্য কি? সুষম খাদ্যের তালিকা এবং প্রয়োজনীয়তা

সুষম খাবার বলতে আমরা এমন খাবারের কথা বুঝি যাতে শরীরের প্রয়োজনীয় সবকটি খাদ্য উপাদানই সঠিক পরিমাণে বিদ্যমান থাকে। সুষম খাদ্য তালিকায় শক্তিদায়ক, শরীর বৃদ্ধিকারক ও ক্ষয়পূরক এবং রোগ প্রতিরোধক খাবার উপযুক্ত পরিমাণে  অন্তর্ভূক্ত থাকতে হবে। অর্থাৎ সুষম খাদ্য বলতে বুঝায় খাদ্যের ৬টি উপাদান নির্দিষ্ট পরিমাণ মতো খাবার যা ব্যক্তিবিশেষের …

পানি খাওয়ার উপকারিতা

পানি জীবন ধারণের জন্য একটি অপরিহার্য উপাদান। মানবদেহের জন্য পানি অপরিহার্য। দেহের গঠন এবং অভ্যন্তরীণ কাজ পানি ছাড়া চলতে পারে না। আমাদের দৈহিক ওজনের ৬০-৭০% পানি। আমাদের রক্ত মাংস, স্নায়ু, দাঁত, হাড় ইত্যাদি প্রতিটি অঙ্গ গঠনের জন্য পানি প্রয়োজন। দেহকোষ গঠন ও কোষের যাবতীয় শারীরবৃত্তীয় প্রক্রিয়াগুলো পানি ছাড়া …