ডায়াবেটিস রোগীর হাইপোগ্লাইসোমিয়া এবং কোমা

হাইপোগ্লাইসোমিয়া

হাইপোগ্লাইসোমিয়া হল রক্তে শর্করার স্বল্পতা। রক্তের শর্করার পরিমান কমাবার জন্য যদি ট্যাবলেট খাওয়া বা ইনসুলিন নেয়া হয় এবং এর ফলে রক্তে শর্করার পরিমান ২.৫ মি:মোল/লিটার এর কম হয়ে যায় তবে (Hypoglycemia) হয়। এ অবস্থায় রোগীর নিম্নবর্ণিত লণ দেখা যায়:-
১. খুবই অসুস্থ বোধ করা;
২. বেশী ঘাম হওয়া;
৩. খুবই ক্ষুধা পাওয়া;
৪. শরীর কাঁপতে থাকা;
৫. অচেতন হয়ে যাওয়া;
৬. শরীরের ভারসাম্য হারিয়ে ফেলা ইত্যাদি।

প্রয়োজনের তুলনায় অতিরিক্ত ইনসুলিন গ্রহণ করলে এবং ইনসুলিন নেয়ার অনেকণ পর খাবার খেলে, সময়মত খাবার না খেলে বা হঠাৎ বেশী ব্যায়াম করলে এ অবস্থা ঘট্তে পারে।  হাইপোগ্লাইসেমিয়া হলে অনতিবিলম্বে রোগীকে ১ গ্লাস পানিতে ৪ (চার) চামচ চিনি গুলিয়ে খাইয়ে দিতে হবে। রোগী অচেতন হয়ে পড়লে দ্রুত হাসপাতালে নিতে হবে।

ডায়াবেটিস হাইপোগ্লাইসোমিয়া

ডায়াবেটিস রোগীর হাইপোগ্লাইসোমিয়া

ডায়াবেটিক কোমা

যাঁরা ইনসুলিন নির্ভর ডায়াবেটিক রোগী, তাঁরা যদি ইনসুলিন নিতে ভূলে যান বা কম ইনসুলিন নেন, পরিমানের অতিরিক্ত খাবার খান এবং দৈহিক কোন পরিশ্রম না করেণ তবে রক্তে সুগারের মাত্রা অতিরিক্ত বেড়ে গিয়ে ডায়াবেটিক কোমা হতে পারে। এ অবস্থা অতি গুরতর এবং সাথে সাথে রোগীকে চিকিৎসালয়ে নিতে হবে। ডায়াবেটিক কোমার লণগুলি হলো:
(ক) খুবই ঘনঘন প্রস্রাব করা এবং প্রস্রাবে গ্লুকোজের মাত্রা খুবই বেড়ে যাওয়া;
(খ) খুব বেশী পিপাসা লাগা এবং খুবই ক্ষুধা লাগা;
(গ) বমি বমি ভাব, দূবর্লতা বোধ, শ্বাস কষ্ট হওয়া, নিস্তেজ বোধ করা এবং চোখে কম দেখা।

Leave a Reply