ভিটামিন কে এর কাজ, উৎস এবং অভাবজনিত রোগ

ভিটামিন-কে এসেনশিয়াল ফ্যাট সলিউবল ভিটামিন। এটি হাড় ও হৃৎপিণ্ডের স্বাস্থ্যকে ভালো রাখে। দেহে ভিটামিন ‘কে’ প্রথ্রোম্বিন নামক প্রোটিন তৈরি করে। প্রথ্রোম্বিন রক্ত জমাট বাঁধতে সাহায্য করে। এ ছাড়া এর আরো অনেক প্রয়োজনীয়তা রয়েছে আমাদের শরীরে।

যে সমস্ত খাদ্যে ভিটামিন কে পাওয়া যায়
পনির, দই, কলিজা (মাছের কলিজা), ডিমের কুসুম, সবুজ শাক-সবজি, সবুজ ফুলকপি, ফুলকপি, ডাল, সয়াবিন, আটা, ভুট্টা, চাল ইত্যাদি। শরীরের স্বাভাবিক অন্ত্রের ব্যাকটেরিয়া দিয়ে এই ভিটামিন তৈরি হয়।

ভিটামিন কে এর কাজ

ভিটামিন কে এর কাজ

  • হাড়ের স্বাস্থ্যের জন্যঃ হাড়ের স্বাস্থ্য ভালো রাখতে ভিটামিন-কে জরুরি। এটি হাড়ের ফ্র্যাকচার কমাতে সাহায্য করে। মেনোপজের পর নারী শরীরে সবচেয়ে বেশি ভিটামিন-কে প্রয়োজন।
  • হৃৎপিণ্ডকে ভালো রাখেঃ ভিটামিন-কে হৃৎপিণ্ডের স্বাস্থ্যের জন্য ভালো। এটি রক্তচাপ কমাতে সাহায্য করে। গবেষণায় বলা হয়, ভিটামিন-কে কার্ডিওভাসকুলার ডিজিজ ও হার্ট অ্যাটাক প্রতিরোধে সাহায্য করে।
  • ক্যানসারের সঙ্গে লড়াইঃ ভিটামিন-এ কোলন, পাকস্থলী, লিভার, মুখগহ্বর, প্রোস্টেট ক্যানসার প্রতিরোধে কাজ করে।
  • ঋতুস্রাবের ব্যথা কমাতেঃ ভিটামিন-কে ঋতুস্রাবের ব্যথা কমাতে সাহায্য করে। এটি হরমোনের কার্যক্রমকে নিয়ন্ত্রণ করে, ঋতুস্রাবের ব্যথা কমায়।
  • মস্তিষ্কের কার্যক্রম ভালো রাখেঃ ভিটামিন-কে মস্তিষ্কের স্বাস্থ্যকে ভালো রাখে। এই ভিটামিনের মধ্যে আছে প্রদাহরোধী উপাদান। এটি অক্সিডেটিভ স্ট্রেসের বিরুদ্ধে কাজ করে আলঝেইমার, পারকিনসন ইত্যাদি রোগ প্রতিরোধ করে।

অভাব জনিত সমস্যা
যকৃত থেকে পিত্তরস নিঃসৃত হয়। পিত্তরস নিঃসরণে অসুবিধা হলে ভিটামিন কে-এর শোষণ কমে যায়। ভিটামিন ‘কে’- এর অভাবে ত্বকের নিচে ও দেহাভ্যন্তরে যে রক্ত ক্ষরণ হয় তা বন্ধ করার ব্যবস্থা না নিলে রোগী মারা যেতে পারে। এ ভিটামিনের অভাবে অপারেশনের রোগীর রক্তক্ষরণ সহজে বন্ধ হতে চায় না। এতে রোগীর জীবন নাশের আশংকা বেশি থাকে।

Leave a Reply