বরবটির উপকারিতা এবং পুষ্টিগুণ

পুষ্টিগুণে ভরপুর বরবটি ভাজি-ভর্তা-তরকারি সবকিছুতেই সমান উপযোগী। বরবটি প্রায় বারো মাসই পাওয়া যায়। খাবারে স্বাদ বাড়ানোর পাশাপাশি চমৎকার কিছু পুষ্টির উৎস এই সবজি। শুধু পুষ্টিগুণেই ভরপুর নয় বরবটি, এটি স্বাস্থ্যের জন্যও খুব উপকারি। এতে প্রচুর পরিমাণে ভিটামিন ‘এ’ ও ‘সি’, ক্যালসিয়াম, ম্যাগনেশিয়াম, আয়রন ও পটাশিয়ামের মতো খনিজ উপাদান আছে। বরবটি আমিষ ও ফাইবার সমৃদ্ধ একটি সবজি। যাদের মাছ-মাংস কেনার সামর্থ্য কম তাদের প্রোটিনের চাহিদা পূরণ করে। বরবটিতে থাকা ডায়েটারি ফাইবার এলডিএল (ক্ষতিকর) কোলেস্টেরলের পরিমাণ কমিয়ে দিয়ে হার্টের সুরক্ষা নিশ্চিত করে। আসুন জেনে নেওয়া যাক বরবটির উপকারিতা এবং পুষ্টিগুণ সম্পর্কে-

বরবটি

বরবটি

হার্টের সুরক্ষায় বরবটি
বরবটিতে থাকা ডায়েটারি ফাইবার এলডিএল (ক্ষতিকর) কোলেস্টেরলের পরিমাণ কমিয়ে দিয়ে হার্টের সুরক্ষা নিশ্চিত করে। এছাড়াও এটি উচ্চ রক্তচাপ, বুক জ্বালাপোড়া প্রভৃতি সমস্যা দূর করতে ভূমিকা রাখে।

ক্যান্সারের ঝুকি কমায়
বরবটিতে ফ্ল্যাভোনয়েড উপাদান ক্যাম্পফেরল ও কুয়ারসেটিন থাকে যা অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট হিসেবে কাজ করে। আর এই অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট ক্যান্সার হওয়ার সম্ভাবনা কমিয়ে দেয়। গবেষণায় দেখা গেছে, এই দুই উপাদান ক্যান্সার কোষের বৃদ্ধি রোধে চমৎকার কাজ করে।

আয়রনের ঘাটতি মেটায়
বরবটিতে থাকা ভিটামিন সি শরীরের জন্য প্রয়োজনীয় আয়রন পরিশোষণে ভূমিকা রাখে। তাছাড়া বরবটিতেও রয়েছে যথেষ্ট পরিমাণ আয়রন। যা শরীরের আয়রনের ঘাটতি পূরণে সাহায্য করে।

চর্বি কমাতে সাহায্য করে
বরবটি কম ক্যালরিযুক্ত এবং অধিক ফাইবার এ ভরপুর খাদ্য, যার ফলে এটি চর্বি কমাতে সাহায্য করে। তাছাড়া বরবটিতে প্রচুর পরিমাণে অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট রয়েছে, যা শরীর থেকে দূষিত যৌগগুলোকে বের করে দেয়। ফলে সহজে শরীরে চর্বি জমতে পারে না।

অস্থিসন্ধির ব্যথা কমায়
বরবটিতে থাকা ভিটামিন ‘কে’ আপনার শরীরের ভিটামিন কে এর চাহিদা মেটাতে পারে। ভিটামিন কে অস্টিওআর্থারাইটিস সমস্যা থেকে অস্থিসন্ধির যত্ন নেবে। আর রক্ত জমাট বাঁধতে ভিটামিন কে- এর ভূমিকার অপরিসীম।

হাড়ের ঘনত্ব বৃদ্ধি করে 
বরবটিতে থাকা সিলিকন হাড়ের ঘনত্ব বৃদ্ধি করে। বরবটির বীজে থাকা ক্যালিসিয়াম হাড় শক্ত করতে সাহায্য করে। নারীদের স্বাস্থ্য উপকারেও ক্যালসিয়াম গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখে।

তাছাড়া চুল পড়ে যাওয়া ঠেকাতেও ভূমিকা রয়েছে বরবটির। কম ক্যালরিযুক্ত খাদ্য ও ফ্যাট-কোলেস্টেরল না থাকায় বরবটি পেট ভরে খাওয়া যায়। এতে ক্ষুধাভাব কম হয়, ওজন হ্রাসে সহায়তা করে।

বরবটির খারাপ দিক খুব কম। নেই বললেই চলে। তবে যাদের রক্তে চিনি অনেক বেশি তাদের বরবটি না খাওয়াই ভালো। অন্যদিকে যাদের কিডনিতে ক্রিয়েটিনিনের সমস্যা এবং যাদের গেঁটে বাত আছে তাদের বরবটি পরিহার করাই উচিত।

Leave a Reply