পিরিয়ডের সময় যে খাবার খাওয়া মারাত্মক ক্ষতিকর

মাসিক বা পিরিয়ডের সময় শরীরে নানান সমস্যা এবং অস্বস্তি হয়। অনেক সময় প্রচণ্ড পেট ব্যাথা করে। শারীরিক এই অস্বস্তি থেকে মুক্তি পাবার জন্য আমরা অনেক কিছুই করি। কিছু কিছু খাবার আছে যেগুলির জন্য এই অস্বস্তি, পেট ব্যাথা বেড়ে যায়। তাই সেই ধরনের খাবার এই সময় না খাওয়াই ভালো। আসুন জেনে নেই পিরিয়ডের সময় যে খাবার ক্ষতিকর এবং কেন ক্ষতিকর এই সম্পর্কে বিস্তারিত ভাবে।

পিরিয়ডের সময় যে খাবার গুলি ক্ষতিকর

অতিরিক্ত তেল বা চর্বি যুক্ত খাবার 
ফ্যাট যুক্ত খাবার পিরিয়ডের সময় না খাওয়াই ভালো। কারণ এগুলি খেলে খুব তাড়াতাড়ি ওজন বাড়ে। এবং এই খাবার গুলি শারীরিক অস্বস্তিকে বহুগুনে বাড়িয়ে দেয়।

প্রক্রিয়াজাত করা খাবার
এই সময় অতিরিক্ত তেল, চিনি ও লবন যুক্ত খাবার কম খাওয়া উচিত কারণ এই খাবার শরীরে পানির মাত্রা আরও বাড়িয়ে দেয়। ফলে শরীর আরও বেশি ফুলে যাবার সম্ভবনা থাকে। কারণ এগুলিতে  প্রিজারভেটিভ হিসাবে বেশি করে তেল, চিনি ও লবন মেশানো থাকে। এই সময় প্রসেস ফুডের বদলে টাটকা খাবার খাওয়া উচিত।

মিষ্টি খাবার
পিরিয়ডের সময় শরীরে হরমনের কিছু পরিবর্তনের ফলে রক্তে সুগার লেবেল বেড়ে যেতে পারে তাই এসময় মিষ্টি জাতীয় খাবার খাওয়া উচিত নয়। সুগার লেবেল স্বাভাবিক না থাকলে শরীরে নানা রকম সমস্যা হয়। মেজাজ খারাপ, ঘন ঘন মেজাজ পরিবর্তন ইত্যাদি। তাই এসন খাবারের পরিবর্তে ফাইবার, টাটকা শাক সব্জি খাওয়া উচিত।

দুগ্ধ জাতীয় খাবার 
দুধ জাতীয় খাবার যেমন, পনির, চিজ, আইসক্রিম এগুলি খুব বেশি খেতে বারন করা হয়। কারণ এই খাবার গুলির ফলে পেটে ব্যাথা বেড়ে যাবার সম্ভবনা থাকে। পেটের ভেতর অস্বস্তি বেড়ে যায়। এছাড়াও এগুলিতে বেশি ফ্যাট থাকে।

চা, কফি 
চা এবং কফিতে ক্যাফেইন থাকে যা পিরিয়ডের সময় শরীরের জন্য ভাল নয়। তাই এই সময় চা কফি না খাওয়াই ভাল। কারণ এই সময় অনেকেরই পেট ব্যাথা করে, আর এগুলি বেশি খেলে পেট বাথা বেড়ে যাবার সম্ভবনা থাকে। তাছাড়া এই জাতীয় পানীয় শারীরিক অস্বস্তি গুলিকে আরও বাড়িয়ে দেয়।

অ্যালকোহল 
পিরিয়ডের সময় অ্যালকোহল খুব ক্ষতিকারক। অতিরিক্ত অ্যালকোহল পান করলে অনিয়মিত পিরিয়ডের একটি সম্ভবনা থাকে। শুধু অনিয়মিত পিরিয়ড নয় এটি শারীরিক অস্বস্তিও বাড়িয়ে দেয়।

উপরিউক্ত খাবার গুলি পিরিয়ডের সময় না খাওয়াই ভাল। এই সময় যতটা সম্ভব টাটকা শাকসবজি, ফল, ও ফাইবার যুক্ত খাবার খাওয়া শরীরের জন্য ভালো।

Leave a Reply