ডায়াবেটিস নিয়ন্ত্রণে উপকারী ফলমূল

ডায়াবেটিসে আক্রান্ত মানুষগুলো সব সময় দ্বিধায় থাকেন কোন ফল তার জন্য ভাল এবং কোনটা ক্ষতিকর। ডায়াবেটিসে আক্রান্ত হলে অনেকে ফলমূল খাওয়া বন্ধ করে দেন। যা একদমই ঠিক কাজ নয়। বরং ডায়াবেটিসে আক্রান্ত হলে শরীরকে দূর্বল হয়ে পড়া থেকে রক্ষা করতে নিয়মিত ফল খেতে হবে। অবশ্য বুঝে শুনে যে ফল গুলি স্বাস্থ্যের জন্য উপকারী সেগুলি খেতে হবে। ডায়াবেটিস নিয়ন্ত্রণে উপকারী ফলমূল গুলি হলো-

উপকারী ফলমূল

উপকারী ফলমূল

কমলালেবু
কমলালেবুতে প্রচুর পরিমাণে পরিমাণে ভিটামিন সি এবং ম্যাগনেশিয়াম রয়েছে যা ডায়াবেটিস নিয়ন্ত্রণে কার্যকরী ভূমিকা পালন করে থাকে। তাই নিয়মিত কমলালেবু খেলে ডায়াবেটিসের সমস্যা থেকে মুক্তি পাওয়া যায়।

আমলকী
আমলকীতে প্রচুর পরিমানে ভিটামিন সি এবং ক্রোমিয়াম আছে। ডায়াবেটিস রোগীরা নিয়মিত আমলকী খেলে রক্তের চিনির পরিমান নিয়ন্ত্রণে থাকে। আমলকীর মধ্যে যে ক্রোমিয়াম থাকে, তা অগ্ন্যাশয়ের জন্য খুবই উপকারী। ফলে ইনসুলিন এবং শর্করার মাত্রাও সঠিক পরিমাণে বজায় থাকে।

আমড়া
আমড়া একটি পুষ্টিকর টক ফল, এতে প্রচুর পরিমানে ভিটামিন সি এবং ফাইবার থাকে। ডায়াবেটিস রোগীদের জন্য ভিটামিন সি সমৃদ্ধ এই ফলটি খুবই উপকারী।

ডালিম
ডায়াবেটিস রোগীদের রক্তে সুগারের নিয়ন্ত্রণ করতে সহায়তা করে ডালিম। বেদানা বা ডালিম এমন একটি ফল, যা শুধু ডায়াবেটিস রোগীরা নয়, প্রতিটি মানুষেরই খাওয়া দরকার। তবে ডায়াবেটিস রোগটি নিয়ন্ত্রণে এটি বেশ সহায়তা করে।

আপেল
আপেলে প্রচুর পরিমাণে ফাইবার থাকে। এই ফাইবার ডায়াবেটিসে আক্রান্তদের জন্য দারুণভাবে উপকারী। এ ছাড়াও এতে থাকা পেকটিন রক্তের শর্করার মাত্রা অনেকটাই কমিয়ে আনতে সাহায্য করে। একই সঙ্গে শরীরে ইনসুলিনের মাত্রা সঠিকভাবে বজায় রাখতেও ভূমিকা পালন করে। তাছাড়া হজম সমস্যার সমাধান করে ইমিউন সিস্টেমের উন্নতি ঘটায় আপেল।

জাম
জাম ডায়াবেটিস আক্রান্তদের জন্য খুবই উপকারী। এটি রক্তে শর্করার পরিমাণ নিয়ন্ত্রণে রাখতে সাহায্য করে। এ ছাড়াও, শরীরে ইনসুলিনের মাত্রা সঠিকভাবে বজায় রাখতে পারে।

পেয়ারা
পেয়ারায় প্রচুর পরিমাণে ভিটামিন এ, সি এবং ডয়াটারি ফাইবার রয়েছে, যা ডায়াবেটিস নিয়ন্ত্রণে রাখতে সাহায্য করে। তাছাড়া এই ফলটি ডায়াবেটিস হওয়ার সম্ভাবনাও দূর করে।

টক বড়ই
টক বড়ইতে আছে প্রচুর ভিটামিন সি যা ডায়াবেটিস রোগীদের জন্য উপকারী।

ডুমুর
ডুমুরে প্রচুর পরিমাণে ফাইবার থাকায়, তা ডায়াবেটিস রোগীদের ক্ষেত্রে ইনসুলিনের কাজ করে।

পেঁপে
পেঁপেতে রয়েছে ভিটামিন এবং মিনারেল, যার কারনে পেঁপে ডায়াবেটিক রোগীদের জন্য বেশ কার্যকর। কাঁচা ও পাকা দুই রকম পেঁপেই ডায়াবেটিস রোগীদের জন্য উপকারী। তবে পাকা পেঁপে মিষ্টি হলে পরিমিত পরিমাণে খাবেন।

জামরুল
জামরুল রক্তের চিনির পরিমান নিয়ন্ত্রণ করে। কারণ জামরুলে আছে প্রচুর পরিমানে ফাইবার যা ডায়াবেটিস নিয়ন্ত্রণে বেশ উপকারী।

ফলমূলে প্রচুর পরিমাণে ভিটামিন, মিনারেল এবং ফাইবার থাকে, যা ডায়াবেটিস রোগীদের রক্তে শর্করার পরিমাণ নিয়ন্ত্রণে রাখতে সাহায্য করে। এক্ষেত্রে উপরিউক্ত ফলমূল আপনার শরীরের প্রয়োজনীয় পুষ্টির জোগান দিতে ভূমিকা রাখবে। তাই দেরি না করে মৌসুমী এই ফলগুলো নিয়মিত খাওয়া শুরু করুন।

Leave a Reply