যে খাবার ভালো ঘুমের জন্য খুবই ক্ষতিকর

ঘুম মানুষের অমূল্য সম্পদ। সুস্থভাবে জীবনযাপনের জন্য নিয়মিত অন্তত ৬ থেকে ৭ ঘণ্টা ঘুম খুবই জরুরি। ঘুম স্মৃতিশক্তি বাড়াতে সহায়তা করে। আমাদের শরীরকে সুস্থ সবল রাখতে ভাল ঘুমের গুরুত্ব অপরিসীম। অনেকই ঘুমের সমস্যায় ভোগেন। এর জন্য অনেকটা দায়ী আপনার নিত্যদিনের খাবার। এমন কিছু খাবার আছে যা আপনার রাতের ঘুম নষ্ট করার জন্য দায়ী। তাই রাতে খাবারে খাওয়ার ক্ষেত্রে একটু বেশি সচেতন থাকতে হয়। কোন খাবার খেয়ে হঠাৎ অসুস্থ হয়ে যেতে পারেন, আবার কোন খাবার আপনার শান্তির ঘুম ব্যাঘাত ঘটাতে পারে। চলুন এবার জেনে নেই ঘুমের জন্য ক্ষতিকর খাবার গুলি সম্পর্কে-

ঘুমের জন্য ক্ষতিকর খাবার

মশলাদার খাবার
মশলাদার খাবার হজম হতে সময় বেশি নিয়ে থাকে এবং পেটে গ্যাসের সমস্যা সৃষ্টি করতে পারে। তাই রাতে মশলাদার খাবার খাওয়া এড়িয়ে চলুন। এই খাবার পেটে হজমে সমস্যাও সৃষ্টি করে থাকে।

গ্রিন টি
যদিও গ্রিন টির অনেক উপকার আছে কিন্তু ঘুমের খুব ক্ষতি করে। তার জন্য দায়ী গ্রিন টিতে থাকা রাসায়নিক উপাদান। তাই ঘুমের সমস্যা থাকলে রাতে কখনওই চা খাবেন না।

কফি
কফিতে ক্যাফেইন নামক উপাদান আছে আপনার নার্ভ সিস্টেমের কাজ বাধাগ্রস্ত করে। তাছাড়া কফির অ্যাসিডিক উপাদান আপনার মস্তিষ্ককে সজাগ রেখে ঘুম তাড়িয়ে দিয়ে থাকে।

ফাস্টফুড
উচ্চ চর্বিযুক্ত ফাস্টফুড আপনার পেটে এসিড তৈরি করে এবং এতে পেটে-বুকে হতে পারে জ্বালাপোড়া। ফাস্টফুড খাওয়া থেকে বিরত থাকুন।

কোমল পানীয়
রাতে কোমল পানীয় পান করা স্বাস্থ্যের জন্য অনেক বেশি ক্ষতিকর। কোমল পানীয় দেহের রক্ত চলাচলে বাধাগ্রস্ত করে এর পাশাপাশি এর অতিরিক্ত চিনি এবং গ্যাসীয় কম্পাউন্ড ঘুমের সাইকেল এবং ঘুমের উদ্রেক করা হরমোনের উৎপাদন বাধাগ্রস্ত করে থাকে।

আইসক্রিম
আইসক্রিমে হাই ফ্যাট আর প্রচুর পরিমাণে চিনি থাকে। তাই শুতে যাওয়ার আগে খেলে আপনার শরীর ফ্যাট বার্ন করে উঠতে পারবে না ফলে আপনি রেস্টলেস হয়ে উঠবেন। আইসক্রিম সহজে হজম হতে চায় না, এমনকি এটি আপনার ওজন বৃদ্ধি করে দিতে পারে। তাই রাতে আইস ক্রিম বা অন্য কোনো মিষ্টি জাতীয় খাবার এড়িয়ে চলাই উচিৎ।

চকলেট
আইসক্রিমের মতোই চকলেট, ক্যান্ডি ঘুমের জন্য ক্ষতিকর। ডার্ক চকলেটে ক্যাফেইন থাকে, কাজেই ঘুমের আগে এটা খেলে ঘুম আসতে দেরি হবে।

চিনি
বিভিন্ন খাবারে যেসব প্রসেস করা চিনি ব্যাবহার করা হয় সেগুলো রক্তে মিশে গিয়ে খুব তাড়াতাড়ি শক্তি সরবরাহ করে, কিন্তু এর কার্যকারিতা শেষ হয়েও যায় খুব তাড়াতাড়ি, ফলে রাতে ঘুম ভেঙ্গে যেতে পারে।

মিষ্টি
রাতে খাওয়ার পর মিষ্টি খাওয়ার অভ্যাস অনেকেরই থাকে। এতে রক্তে শর্করার মাত্রা বেড়ে গিয়ে শরীরে শিথিলতা যেমন আসে, তেমনই ওজনও বাড়ে তরতর করে।

পাস্তা
পাস্তাতে উচ্চ মাত্রায় গ্লাইসেমিক ইনডেক্স থাকে যেটা আপনার রক্তে সুগারের মাত্রাকে বাড়িয়ে তুলবে। ফলে ভালো ঘুমের ব্যাঘাত ঘটা অনিবার্য।

বেশি প্রোটিন জাতীয় খাবার
বেশি পরিমাণে প্রোটিন খেলে ঠিক মতো ঘুম আসবে না। মাংস, ডাল, চর্বি জাতীয় খাবার হজম হতে বেশি সময় নিয়ে থাকে। তাছাড়া প্রোটিন শরীরে প্রচুর এনার্জি তৈরি করে। এতে শরীর শান্ত হওয়ার পরিবর্তে উত্তেজিত হয়। তাই রাতে এসব খাবার পরিমাণ মত খাবেন।

তাই এসব খাবার না খেয়ে স্বাস্থ্যকর খাবার খান নিয়মিত, তাহলেই ভাল ঘুম হবে আর আপনার মেজাজ থাকবে ফুর ফুরে। আর ঘুমাতে যাওয়ার তিন ঘণ্টা আগে অন্তত রাতের খাবার সেরে ফেলার চেষ্ট করুন, কারণ ভাল ঘুমের জন্য এটিও অনেক সহায়ক।

Leave a Reply