কুল বা বরইয়ের উপকারিতা এবং পুষ্টিগুণ

বরই কিংবা কুল দুই নামেই সমান পরিচিত ফলটি আমাদের দেশের একটি শীতকালীন জনপ্রিয় ফল। বাংলাদেশের প্রায় সব জায়গায় সব ধরনের মাটিতে কুল জন্মে। বাজারে টক-মিষ্টি গোল বরই, নারকেল কুল, আপেল কুল, বাও কুল ইতাদি রকমের বরই পাওয়া যায়। বরই কাঁচা অবস্থায় সবুজ আর পাকলে লাল, এটি এমন একটি ফল যেটা কাঁচা হোক বা পাকা, যেকোনো অবস্থাতেই খাওয়ার জন্য উপযুক্ত। এমনকি শুকনো বরইও খাওয়া যায়। বাজারে এখন নানা রকম কুল বা বরই পাবেন, দামও হাতের নাগালেই। শীত থেকে গরমের শুরু অবধি সময়টা দেশি ফলের অভাব মেটায় প্রধানত দেশি টক বরই ও মিষ্টি কুল। এটি শুকিয়ে অনেক দিন সংরক্ষণ করা যায়। কাঁচা ও শুকনো কুল দিয়ে চমৎকার চাটনি ও আচার তৈরি করা যায়। কখনো কি জানার চেষ্টা করেছেন যে ছোট্ট গোলগাল এই ফলটি আপনার শরীরের জন্য কতটা উপকারী? চলুন আজ জেনে নেই কুল বা বরইয়ের উপকারিতা সম্পর্কে-

বরই বা কুল

বরই বা কুল

রোগ প্রতিরোধে কাজ করে
বরইয়ে ভিটামিন-এ, ভিটামিন-সি, ক্যালসিয়াম, পটাশিয়াম, ম্যাগনেসিয়াম, অ্যান্টিঅক্সিডেন্টসহ  আরও অনেক উপকারী উপাদান থাকে। যা আমাদের রোগ প্রতিরোধে যেমন ভূমিকা রাখে, অন্যদিকে শরীরের রোগ প্রতিরোধক্ষমতাও বাড়িয়ে দেয়। এর ভেতরে থাকা অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট শরীরের ফ্রি র‍্যাডিকেলগুলোকে নিস্ক্রিয় করে দেয়।

ক্যান্সার প্রতিরোধ করে
বরই এর মধ্যে থাকা অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট উপাদান টিউমারের উপর সাইটোটক্সিক প্রভাব বিস্তার করে। যার ফলে শরীরে ক্যান্সার হওয়ার সম্ভাবনা কমে যায়।

রক্ত পরিশুদ্ধি করে
শুকনো বরই এর মধ্যে স্যাপোনিন, অ্যাল্কালয়েড এবং ট্রাইটারপেনয়েড উপাদান থাকে যারা রক্ত পরিশুদ্ধ করে এবং হজম প্রক্রিয়ায় সহায়তা করে।

ক্ষুধাবর্ধক এবং হজমে সাহায্য করে
বরই কোষ্ঠকাঠিন্যসহ অন্যান্য হজমজনিত সমস্যার সমাধান করে। ক্ষুধাবর্ধক হিসেবে কাজ করে।

ওজন নিয়ন্ত্রণ
বরইতে ফ্যাট নাই বললেই চলে। ফলে ওজন নিয়ন্ত্রণেও এরা সাহায্য করতে পারে।

উচ্চরক্তচাপ ও ডায়াবেটিস রোধ করে
কুল অত্যন্ত চমৎকার একটি রক্ত বিশুদ্ধকারক। উচ্চরক্তচাপ ও ডায়াবেটিস রোগীদের জন্য টক বরই উপকারী ফল।

হাড় মজবুত করে
বরই একই সঙ্গে ক্যালসিয়াম, ফসফরাস ও আয়রন সমৃদ্ধ হওয়ায় হাড় গঠনে এবং দাঁতের সুরক্ষায় ভূমিকা রাখে। যা হাড় শক্ত ও মজবুত করতে সাহায্য করে।

ইনসোমনিয়া বা অনিদ্রা দূর করে
বরই অবসাদ এবং দুশ্চিন্তা দুর করে। ইনসোমনিয়া এবং দুশ্চিন্তা অনেক মানুষের ক্ষেত্রে দেখা যায়। বরই এর শক্তিশালি উপাদানগুলি অনিদ্রা এবং দুশ্চিন্তা কমিয়ে আনতে সাহায্য করে।

ত্বকে ভাল রাখে
ত্বকের রুক্ষতা দূর করে ত্বককে কোমল করে বরই। রোদে পোড়া ত্বক সুরক্ষার কাজেও কার্যকর। বরই বয়সের ছাপ পড়তেও বাধা দেয়।

রক্ত সঞ্চালন
আয়রন ও ফসফরাস শরীরে রক্ত উৎপাদন এবং রক্ত সঞ্চালনের প্রক্রিয়া বৃদ্ধি করে।

ভিটামিন সি এর ভাল উৎস
কুলে রয়েছে প্রচুর পরিমাণে ভিটামিন সি। ফলে এটি সংক্রামক রোগ দূর করতে সহায়তা করে। যেমন: টনসিলাইটিস, ঠোঁটের কোণে ঘা, জিহ্বায় ঘা, ঠোঁটের চামড়া উঠে যাওয়া ইত্যাদি দূর করে।

এছাড়াও মৌসুমি জ্বর, সর্দি-কাশিও প্রতিরোধ করে কুল এমনকি হজমশক্তি বৃদ্ধি ও খাবারে রুচি বাড়িয়ে তোলে এ ফল। বিভিন্ন দেশে পেটের সমস্যা দূর করতে, মাংসপেশী শক্তিশালী করতে এই ফলের ব্যবহার করা হয়ে থাকে। তাছাড়া যকৃতের নানা রোগ প্রতিরোধে সহায়তা করে এই ফল। ডায়রিয়া, ক্রমাগত মোটা হয়ে যাওয়া, রক্তশূন্যতা, ব্রঙ্কাইটিস ইত্যাদি রোগ নিরাময়ে কাজ দেয় এই ফল।

Leave a Reply