ওজন কমানোর সর্বকালের সর্বসেরা ১০ টি উপায়

শরীরের বাড়তি ওজন নিয়ে আজকাল অনেকেই চিন্তিত। নিজের ওজনটা কমিয়ে সকলেই মেদ হীন ও ফিট থাকতে চান। সুস্বাস্থ্যের জন্য তো বটেই, শারীরিক সৌন্দর্যের জন্যও নারী-পুরুষ উভয়েই ভাবেন ওজন কমাবেন। কিন্তু কর্মব্যস্ততা এবং সময় স্বল্পতার কারণে ওজন কমানোর জন্য প্রয়োজনীয় ব্যায়াম বা ডায়েট করা হয়ে ওঠে না। আপনি জেনে অবাক হবেন যে কিছু সহজ কৌশল অবলম্বন করলে বাড়তি ওজন কমানো কিন্তু অতটা কঠিন নয়। আপনিও পারবেন খুব সহজেই ওজন কমাতে। আমাদের পুষ্টি বাড়িতে আজ থাকছে ওজন কমানোর সর্বকালের সর্বসেরা ১০ টি উপায়, যা আপনার ওজন কমিয়ে আকর্ষণীয় শরীর গঠনে শত ভাগ কার্যকরী। আসুন এবার দেখে নেয়া যাক সর্বসেরা ওজন কমানোর উপায় গুলি।

ওজন কমানোর টিপস

সারাদিন প্রচুর পানি পান করুন
শরীরের চর্বি কমাতে সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা নিতে পারে পানি। পানি শরীরে জমে থাকা চর্বি এবং শর্করাকে হজমের মাধ্যমে শরীর থেকে বের করে দিতে সক্ষম। তাছাড়া পর্যাপ্ত পরিমাণ পানি পান করলে শরীর আর্দ্র থাকে, এতে পেট ভরা থাকে এবং ক্ষুধাও কম লাগে, এ কারণে আপনি খাবার কম খাবেন, ফলে ওজনও কমবে তাতে। তাই দিনে অন্তত ১০ থেকে ১২ গ্লাস পানি পান করুন।

প্রচুর শাকসবজি এবং ফলমূল খান
শাকসবজি এবং ফলমূলে চর্বির পরিমাণ নেই বললেই চলে এবং শর্করার পরিমাণ খুবই কম থাকে। খাবারের চর্বি ও শর্করা শরীরে মেদ জমার অন্যতম কারণ। শাকসবজি এবং ফলমূলে প্রচুর আঁশ বা ফাইবার থাকে তাই এসব খাবার খেলে ওজন কমে। তাই প্রতিদিনের খাদ্য তালিকায় বেশি বেশি শাকসবজি এবং ফলমূল রাখুন। সবজির মধ্যে রয়েছে আমাদের দেহের অতি প্রয়োজনীয় ভিটামিন, খনিজ উপাদান এবং অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট যা  শরীর সুস্থ রাখতেও সাহায্য করে।

প্রোটিন সমৃদ্ধ খাবার খাবেন
বেশি বেশি প্রোটিনসমৃদ্ধ খাবার খাদ্য তালিকায় রাখুন। এতে শরীরের চর্বি দ্রুত কমে যাবে এবং পেশি স্বাস্থ্যকর হবে। প্রোটিন জাতীয় খাবার কম খেলে শরীরে এর অভাবে বাজে প্রভাব পড়বে। তাই বেশি বেশি মাংস, ডিম, দুধ এবং ডাল খাদ্যতালিকায় রাখুন। তবে চর্বি যুক্ত মাংস এড়িয়ে চলতে হবে।

মিষ্টিজাতীয় খাবার থেকে দূরে থাকুন
চিনি বা মিষ্টিজাতীয় খাবার থেকে দূরে থাকুন। পাশাপাশি শর্করাজাতীয় খাবার যেমন ভাত এবং রুটি কম করে খাবেন। এসব খাবার কম খেলে ওজন দ্রুত কমবে।

সঠিক মাত্রার ক্যালরি গ্রহণ করুণ
আপনার শরীরের জন্য কতটুকু ক্যালরি দরকার, সে অনুযায়ী ক্যালরিসমৃদ্ধ খাবার খান। প্রয়োজনের চেয়ে কম অথবা বেশি খেলে আপনার কাঙ্ক্ষিত ফল কখনই পাবেন না। প্রয়োজনে পুষ্টিবিদের পরামর্শ নিন।

কোন বেলার খাবার বাদ দেওয়া যাবেনা
কোনো বেলায় খাবার খাওয়া বাদ দিয়ে বা না খেয়ে ওজন কমানো যায় না। এতে ওজন ত কমবেই না বরং আপনি আরও অসুস্থ হয়ে পড়বেন। তবে একেবারে খুব বেশি না খেয়ে অল্প পরিমাণ খাবার কয়েক বারে ভাগ করে খাবেন।

খাওয়ার পর মিষ্টি জাতীয় খাবার খাবেন না
খাওয়ার পর একটু মিষ্টি জাতীয় খাবার খাওয়ার অভ্যাস আমাদের অনেকেরই আছে। মিষ্টি জাতীয় খাবার বা পানীয় মানেই অনেক অনেক বাড়তি ক্যালোরি। তাই এই অভ্যাসটি আপনাকে একেবারেই পরিহার করতে হবে।

ফাস্টফুডকে না বলুন
প্রক্রিয়াজাত খাবার, ফাস্টফুড, কোমল পানীয়, সোডা ইত্যাদি খাবারগুলোকে একেবারে না বলুন। এই খাবার গুলিতে তেল, শর্করা এবং ক্যালরির পরিমাণ খুবই বেশি থাকে এতে আপনার ওজন খুব দ্রুত বেড়ে যায়।

প্রতিদিন হাটা হাটি করুণ
ওজন কমাতে হাঁটার কোনো বিকল্প নেই। আর হাঁটা তো কেবল ওজনই কমাবে না, কমাবে ডায়াবেটিস এবং হৃদরোগের ঝুঁকিও। তাই প্রতিদিন কম পক্ষে ৪০ থেকে ৪৬ মিনিট নিয়ম করে হাটা হাটি করুণ। বিষণ্ণতা বা মন খারাপ ভাবও কমে যাবে প্রতিদিন হাটা হাটি করলে।

গ্রিন টি পান করুন
কোমল পানীয়, মিষ্টি জুস, কালো চা বাদ দিন, শুধুমাত্র গ্রিন টি পান করুন। গ্রিন টি শরীরকে মেদমুক্ত করতে কার্যকরী ভূমিকা পালন করে থাকে। তবে মনে রাখবেন গ্রিন টি অবশ্যই চিনি ছাড়া তৈরি করতে হবে।

তাছাড়াও ওজন কমানোর গতিকে ত্বরান্বিত করার জন্য দৈনিক কমপক্ষে ৮ ঘন্টা ঘুমানো দরকার, কারন পর্যাপ্ত ঘুম শরীরের মেটাবলিজম বা হজম বাড়িয়ে দেয়।

Leave a Reply